রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ০৭:১৬ পূর্বাহ্ন

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্তের একটি পদ্ধতি পরীক্ষামূলক পর্যায়ে রয়েছে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্তের একটি পদ্ধতি পরীক্ষামূলক পর্যায়ে রয়েছে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র

বিশ্বব্যাপী মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্তের জন্য সহজ ও স্বল্পমূল্যের একটি পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছে  বাংলাদেশের বেসরকারি সংগঠন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র।

প্রতিষ্ঠানটি বলছে, তাদের উদ্ভাবিত পদ্ধতিটি অতি সহজে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করতে পারবে। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, এটি একটি ভিন্নতর পদ্ধতি যার নাম দেয়া হয়েছে ‘র‍্যাপিড ডট ব্লট।’

তিনি জানিয়েছেন বৃহস্পতিবার সরকার বিদেশ থেকে এর কাঁচামাল আমদানির জন্য অনুমতি দিয়েছে। তিনি জানান, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের বিজ্ঞানী ড. বিজন কুমার শীলের নেতৃত্বে ড. নিহাদ আদনান, ড. মোহাম্মদ রাশেদ জমিরউদ্দিন ও ড. ফিরোজ আহমেদ এই পদ্ধতি উদ্ভাবন করেন। ডা. বিজন কুমার শীল ২০০৩ সালে সিঙ্গাপুরে সারস শনাক্তের পদ্ধতি আবিষ্কার করেন এবং এর প্যাটেন্ট পরবর্তীতে চীন কিনে নেয় বলে জানান জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

তিনি বলেন, নতুন উদ্ভাবিত পদ্ধতির মাধ্যমে খুবই স্বল্প সময়ে কোন ব্যক্তির শরীরে করোনা ভাইরাস আছে কিনা তা জানা যাবে এবং এতে সর্বচ্চ খরচ পড়বে ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকার মতো। তিনি বলেন, বর্তমানে দেশে করোনা ভাইরাস শনাক্তের যে পরিমাণ কিট রয়েছে তা ব্যয়বহুল এবং প্রয়োজনের তুলনায় নিতান্তই কম। ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল বা সিডিসি তাদের উদ্ভাবিত পদ্ধতির বিষয়ে ইতোমধ্যেই আগ্রহ প্রকাশ করেছে। তবে তিনি বলেন, খুব শীঘ্রই তাঁরা এর নমুনা তৈরি করে বিশ্ব স্বীকৃত বিভিন্ন সংস্থার কাছে পাঠাবেন এর কার্যকারিতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার জন্য। এ বিষয়ে তিনি ভয়েস অব অ্যামেরিকার সাথে কথা বলেছেন।

বাংলাদেশের ঔষধ প্রশাসন বলেছে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সবুজ সংকেত পাওয়ার পরই নতুন পদ্ধতির ব্যবহার করা সম্ভব হবে।

Please Share This Post in Your Social Media




© All rights reserved © 2017 Asiansangbad.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com