মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ০৪:৫১ অপরাহ্ন

করোনা নিয়ে নতুন তথ্য ‌ডব্লিউএইচও-র

করোনা নিয়ে নতুন তথ্য ‌ডব্লিউএইচও-র

এশীয়ান সংবাদ ডেস্ক :  যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাসের যে নতুন ধরন শনাক্ত হয়েছে তার অস্তিত্ব ২০১৯ সালেই ছিল। ওই বছর ডিসেম্বরে প্রথম ধরা পড়ার সময়ই চীনের উহানে ১৩ ধরনের করোনাভাইরাস ছিল। এমন ভয়াবহ তথ্যই উঠে এসেছে উহান থেকে ফেরা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) তদন্তকারী দলের প্রতিবেদনে।

সম্প্রতি চীনে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণের উৎস শনাক্তে তদন্ত করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ওই প্রতিনিধিদল। তবে বেইজিং প্রথমে ১৭ সদস্যের প্রতিনিধিদলকে উহানে যেতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলো। পরে কয়েক মাস ধরে সমঝোতা-প্রচেষ্টার পর উহানে সংস্থাটির প্রতিনিধিদের তদন্তকাজে ঢুকতে দিতে রাজি হয় বেইজিং।

দলের প্রধান পিটার বেন এমবারেক সিএনএনকে জানান, উহানে করোনাভাইরাসের বিস্তার ছিল কল্পনাতীত। আংশিক নমুনা পরীক্ষা করেই সেসময় সেখানে উপস্থিত ১৩টি নতুন ধরনের করোনার সন্ধান পান বিশেষজ্ঞরা।

আর এর থেকেই ডিসেম্বরে প্রথম রোগী শনাক্তের বহু আগেই চীনে করোনার সংক্রমণ শুরু হয়েছে বলে ধারণা করছেন পিটার বেন এমবারেক। এছাড়া ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের আগে উহানের কোন ল্যাবে করোনাভাইরাস নিয়ে গবেষণা করা হয় নি বলেও জানিয়েছে চীন ফেরত বিশেষজ্ঞদলটি।

করোনা সংক্রমণ নিয়ে প্রথমে গবেষকদের ধারণা ছিল, করোনাভাইরাসের সূত্রপাত ২০১৯ সালে উহানে বন্য প্রাণীর কোনো বাজার থেকে হতে পারে। পরে সেখান থেকে ভাইরাসটি প্রাণী থেকে মানবদেহে প্রবেশ করেছে। তবে বিশেষজ্ঞরা এখন মনে করছেন, উহান থেকে ভাইরাসটির সূত্রপাত না হয়ে সেখানে এটির শুধু বিস্তার ঘটে থাকতে পারে।

তাছাড়া গবেষকেরা আরো ইঙ্গিত দিয়েছেন, মানুষকে সংক্রমিত করতে সক্ষম এ ভাইরাস দশকের পর দশক ধরে অশনাক্তকৃত অবস্থায় থেকে বাদুড়ের মাধ্যমে ছড়াতে পারে।পিটার বেন এমবারেক জানান, তারা এই প্রথম সার্স-কোভ-২ ভাইরাসের ১৩টি পৃথক জেনেটিক সিকোয়েন্স জোগাড় করতে পেরেছেন।

২০১৯ সালে চীনে করোনায় আক্রান্ত রোগীদের ওপর পাওয়া বিস্তারিত তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে এসব জেনেটিক সিকোয়েন্স পরীক্ষা করা সম্ভব হলে ডিসেম্বরের আগে ঠিক কখন ও কোথায় সংক্রমণ শুরু হয়েছিল, সে সম্পর্কে মূল্যবান সূত্র পাওয়া যাবে বলেও আশা করেন তিনি।

উহান সফরে তদন্তকারীরা এখন পর্যন্ত যেসব তথ্য উদ্‌ঘাটন করতে পেরেছেন, তা করোনার উৎস শনাক্তে গবেষণা চালিয়ে যাওয়া অন্য বিজ্ঞানীদের ভাবনায় নতুন মাত্রা যোগ করতে পারে। দুই সপ্তাহের মধ্যে এ নিয়ে চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তদন্তকারীরা।

করোনার উৎস অনুসন্ধানের বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন দেশ, বিশেষত যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চীনের উত্তেজনাও দেখা দিয়েছিলো। এ নিয়ে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভাইরাসের প্রাথমিক সংক্রমণের বিষয়টি চীন চেপে গেছে বলে অভিযোগও করেছিলেন।

Please Share This Post in Your Social Media




© All rights reserved © 2017 Asiansangbad.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com