বুধবার, ২৮ Jul ২০২১, ০৬:৫২ অপরাহ্ন

মিন্নিকে দেয়া হাইকোর্টের জামিন আদেশ স্থগিত চেয়ে রবিবার আবেদন

মিন্নিকে দেয়া হাইকোর্টের জামিন আদেশ স্থগিত চেয়ে রবিবার আবেদন

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে দেয়া হাইকোর্টের জামিন আদেশ স্থগিত চেয়ে রবিবার আবেদন করেছে রাষ্ট্রপক্ষ।

বিকাল ৪টার দিকে আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাডভোকেট অন রেকর্ড সুফিয়া খাতুন এ আবেদন দায়ের করেন।

সোমবার আপিল বিভাগের চেম্বার আদালতে মিন্নির জামিন স্থগিতের আবেদনের ওপর শুনানি হতে পারে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার বাবার জিম্মায় থাকা এবং গণমাধ্যমের সাথে কথা না বলার শর্তে মিন্নিকে জামিন দেয় হাইকোর্ট।

আদালত বলে, ১৯ বছর বয়সী মিন্নি জামিনে থাকা অবস্থায় তার বাবার জিম্মায় থাকবেন এবং গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে পারবেন না। ব্যত্যয় ঘটলে তার জামিন বাতিল হবে।

এর আগে বুধবার মিন্নিকে কেন জামিন দেয়া হবে না সে বিষয়ে সরকারকে ব্যাখ্যা দিতে জারি করা রুলের ওপর রায় দেয়ার জন্য বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করে হাইকোর্ট।

হাইকোর্ট ২০ আগস্ট মিন্নির জামিন বিষয়ে রুল জারি করে এবং পরবর্তী শুনানিতে মামলার নথি নিয়ে আদালতে হাজির হতে তদন্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেয়।

এর আগে ৮ আগস্ট হাইকোর্ট মিন্নির জামিন নামঞ্জুর করে জানায়, কেন তিনি জামিন পাবেন না তার ব্যাখ্যা চাইতে আদালত রুল জারি করতে পারে কিন্তু তাকে এখন জামিন দিতে পারবে না। আদালত আরও বলে, তাদের এ মামলায় মিন্নির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি পরীক্ষা করে দেখতে হবে।

২৬ জুন সকালে প্রকাশ্যে বরগুনা সরকারি কলেজ গেটের সামনে রিফাতকে (২২) কুপিয়ে আহত করা হয়। এ সময় স্বামীকে বাঁচাতে চেষ্টা করতে দেখা যায় মিন্নিকে। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় বরিশাল নেয়ার পর রিফাত মারা যান। এ ঘটনায় তার বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনকে আসামি করে বরগুনা থানায় হত্যা মামলা করেন।

মামলায় এ পর্যন্ত ১৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তবে প্রধান আসামি সাব্বির আহমেদ ওরফে নয়ন বন্ড ২ জুলাই পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন।

রিফাত হত্যা মামলার প্রধান সাক্ষী মিন্নিকে ১৬ জুলাই সকাল পৌনে ১০টার দিকে পুলিশ লাইনে এনে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে রাত ৯টার দিকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। পরদিন তাকে আদালতে হাজির করে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়। তবে রিমান্ডের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই ১৯ জুলাই তাকে আদালতে হাজির করা হয় এবং তিনি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। পরে মিন্নিকে বরগুনা কারাগারে পাঠানো হয়।

তবে মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোরের দাবি, কারাগারে মিন্নি তাদের জানিয়েছেন যে নির্যাতন ও ভয়ভীতি দেখিয়ে তার কাছ থেকে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি আদায় করা হয়েছে। ৩১ জুলাই মিন্নির ১৬৪ ধারায় দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রত্যাহারের আবেদন জানানো হয়।

Please Share This Post in Your Social Media




© All rights reserved © 2017 Asiansangbad.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com