শিরোনাম :
রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের ভূমিকায় পূর্ণ সংহতি প্রকাশ নেতাদের উন্নয়ন পেতে হলে নৌকায় ভোট দিয়ে শেখ হাসিনাকে আবারো ক্ষমতায় আনতে হবে: শিল্পমন্ত্রী ইংল্যান্ড জাতীয় ক্রিকেট দলের নতুন নির্বাচক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন এড স্মিথ। জাপান উ. কোরিয়ার প্রতিশ্রুতিতে সন্তুষ্ট নয় দেশে ফিরেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদি অর্থবছরের প্রথম ৮ মাসে যুক্তরাষ্ট্রে রফতানিতে ১.৬২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ঝালকাঠিতে কৃষকের মধ্যে সার ও বীজ বিতরণ ইয়াবাসহ যাত্রাবাড়ীতে ২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নিয়োগ পরীক্ষায় ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার গ্রেফতার ৫ রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের সাথে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা বিনিময়

সিরীয় সেনাবাহিনীর গৌতা পুনরুদ্ধারের ঘোষণা

সিরিয়া সেনাবাহিনী জানিয়েছে, ইস্টার্ন গৌতা থেকে সরকার বিরোধী বাহিনীর সকল সদস্য চলে গেছে। রাজধানী দামেস্কের উপকণ্ঠে বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলটি পুনরুদ্ধারে দুই মাসের অভিযান চালানোর পর এটি সরকারি বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে এলো।
খবর বার্তা সংস্থা এএফপি’র।
ওই অঞ্চলের প্রধান শহর দৌমায় একটি সন্দেহজনক রাসায়নিক হামলার জবাবে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে সিরীয় সরকারি বাহিনীর বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তুতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানোর মাত্র কয়েক ঘন্টার পর এই ঘোষণা দেয়া হলো। এটি প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের অন্যতম প্রধান কৌশলগত বিজয়।
এক সেনা মুখপাত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা সানা শনিবার জানায়, ‘সকল সন্ত্রাসী দৌমা ছেড়ে চলে গেছে। গৌতায় ছিল তাদের সর্বশেষ ঘাঁটি।’
এক সেনামুখপাত্র বলেন, ‘দামেস্কের উপকণ্ঠে ইস্টার্ন গৌতার এলাকাগুলো সন্ত্রাসীদের কাছ থেকে সম্পূর্ণ মুক্ত করা হয়েছে।’
দামেস্ক থেকে সামান্য পূর্বে অবস্থিত ইস্টার্ন গৌতা ছিল একটি আধা পল্লী এলাকা। এখানে প্রায় ৪ লাখ লোকের বাস।
সরকারি বাহিনী অবরুদ্ধ করে রাখায় এখানে খাবার, ওষুধসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী নিয়ে গাড়ি বহর ঢুকতে পারেনি।
অঞ্চলটি পুনরুদ্ধারে ১৮ ফেব্রুয়ারি সিরীয় সরকার ও তার মিত্র বাহিনী বড় ধরনের অভিযান শুরু করে। ২০১২ সাল থেকে অঞ্চলটি সরকারের নিয়ন্ত্রণে ছিল না।
ব্রিটেন ভিত্তিক পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানায়, ব্যাপক বোমা বর্ষণে এই অঞ্চলের প্রায় ১ হাজার ৭শ’ বেসামরিক লোক প্রাণ হারিয়েছে।
দামেস্কের বিরুদ্ধে দৌমায় ৭ এপ্রিল আন্তর্জাতিকভাবে নিষিদ্ধ ঘোষিত রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের অভিযোগ আনা হয়েছে।
এই রাসায়নিক হামলার জবাবে শনিবার রাতে যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স ও ব্রিটেন সিরিয়ার সন্দেহজনক রাসায়নিক অস্ত্রের স্থাপনাগুলোতে ব্যাপক ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায়।
সিরিয়া ও তার মিত্র রাশিয়া বরাবরই রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের বিষয়টি অস্বীকার করে আসছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..