মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে যশোরের ৫ জনের বিরুদ্ধে ফরমাল চার্জ দাখিলের জন্য আগামী ১৭ জুন দিন নির্ধারণ করেছে ট্রাইব্যুনাল

মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে যশোরের মনিরামপুরের সিদ্দিকুর রহমান গাজী ওরফে সিদ্দিকসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে ফরমাল চার্জ (আনুষ্ঠানিক অভিযোগ) দাখিলের জন্য আগামী ১৭ জুন দিন নির্ধারণ করেছে ট্রাইব্যুনাল।
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যর বিচারিক প্যানেল আজ প্রসিকিউশনের সময় আবেদন মঞ্জুর করে এ আদেশ দেয়।
প্রসিকিউশনের পক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম, প্রসিকিউটর রেজিয়া সুলতানা চমন।
এর আগে গত ১০ এপ্রিল যশোরের মনিরামপুরের সিদ্দিকুর রহমান গাজী ওরফে সিদ্দিকসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন প্রকাশ করে তদন্ত সংস্থা।
প্রতিবেদনে জানানো হয়, মুক্তিযুদ্ধের সময় হত্যা, আটক, নির্যাতন, ধর্ষণসহ মানবতাবিরোধী অপরাধে ছয়টি অভিযোগে যশোর জেলার মনিরামপুর থানার সিদ্দিকসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। সিদ্দিক ছাড়া বাকি পলাতক চার আসামির পরিচয় গ্রেফতারের স্বার্থে প্রকাশ করা হয়নি ।
এ মামলাটি তদন্ত করেছেন তদন্ত কারী কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক খান। তদন্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৬ সালের ২৩ আগস্ট এ মামলার তদন্ত শুরু হয়ে ২০১৮ সালের ১০ এপ্রিল শেষ হয়। এতে সাক্ষী করা হয়েছে ৩৩ জনকে।
আসামিদের বিরুদ্ধে আনিত ছয়টি অভিযোগ হচ্ছে- যশোর জেলার মনিরামপুর থানাধীন ভোজগাতী গ্রামের মোকছেদ বিশ্বাসকে অপহরণ করে হত্যা। বিজয়রামপুর গ্রামের মোজাম মোড়লকে অপহরণ করে হত্যা। একই থানার দিকদানা ও নোয়ালী গ্রামের তিন নারীকে আটক করে নির্যাতন ও ধর্ষণ। দুর্বাডাঙ্গা গ্রামের একজনকে আটক করে নির্যাতন ও ধর্ষণ। রোহিতা ইউনিয়নের সরষকাটি গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান, আব্দুল গণি ও তোজাম্মেল হোসেনকে অপহরণ করে হত্যা। চিনাটোলা গ্রামে এক বাড়িতে আশ্রয় নেয়া ছয়জন মুক্তিযোদ্ধাকে আটক করে চিনাটোলা বাজারের পূর্ব পার্শ্বে হরিহর নদের ওপর স্থাপিত ব্রিজের ওপর লাইনে দাঁড় করিয়ে গুলি করে হত্যার অভিযোগ।

     এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..