শিরোনাম :
রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের ভূমিকায় পূর্ণ সংহতি প্রকাশ নেতাদের উন্নয়ন পেতে হলে নৌকায় ভোট দিয়ে শেখ হাসিনাকে আবারো ক্ষমতায় আনতে হবে: শিল্পমন্ত্রী ইংল্যান্ড জাতীয় ক্রিকেট দলের নতুন নির্বাচক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন এড স্মিথ। জাপান উ. কোরিয়ার প্রতিশ্রুতিতে সন্তুষ্ট নয় দেশে ফিরেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদি অর্থবছরের প্রথম ৮ মাসে যুক্তরাষ্ট্রে রফতানিতে ১.৬২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ঝালকাঠিতে কৃষকের মধ্যে সার ও বীজ বিতরণ ইয়াবাসহ যাত্রাবাড়ীতে ২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নিয়োগ পরীক্ষায় ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার গ্রেফতার ৫ রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের সাথে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা বিনিময়

রমজানে নিত্য-প্রয়োজনীয় পণ্যের কোন সংকট হবে না – বাণিজ্যমন্ত্রী

নিত্য-প্রয়োজনীয় পণ্য সরবরাহে ঘাটতি না থাকায় আসন্ন রমজানে এসব পণ্যের সংকটের কোন সম্ভাবনা নেই। একইসাথে চাহিদার তুলনায় পণ্যের সরবরাহ কয়েকগুণ বেশী হওয়ায় কোন দ্রব্যের দাম বাড়ারও কোন কারণ নেই।

সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আজ রোববার ‘নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের সরবরাহ, বিপণন ও মূল্য পরিস্থিতি’ সংক্রান্ত এক বৈঠকে এ তথ্য জানানো হয়।

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এ বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। বাণিজ্য সচিব শুভাশিস বসু, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব শাহাবুদ্দিন আহমেদ, ট্যারিফ কমিশনের চেয়ারম্যান, মেঘনা গ্রুপের চেয়ারম্যান, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধি, ব্যবসায়ী সংগঠনসমুহের নেতৃবৃন্দ, অর্থ মন্ত্রণালয়, কৃষি মন্ত্রণালয়, খাদ্য মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কর্মকর্তাগণ এবং সাংবাদিকগণ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘দেশে নিত্য-প্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রীর পর্যাপ্ত মজুত রয়েছে। এ কারণে এ বছর রমজানে নিত্যপণ্যের কোনও সংকট হবে না, মূল্যও বাড়বে না।তিনি ব্যবসায়ীদের সতর্ক করে দিয়ে বলেন, রমজানে যেসব ব্যবসায়ী নিত্য-প্রয়োজনীয় দ্রব্য মজুদ করবে,তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। সভায় ব্যবসায়ী রমজানে পণ্য সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে দিনের বেলায় রাজধানীতে পণ্য বোঝাই ট্রাক প্রবেশের সুযোগ চান।

বাণিজ্যমন্ত্রী এ বিষয়টি বিবেচনায় নেয়ার আশ্বাস দিয়ে বলেন, ‘রমজানের পর যাতে লোকজন সুনাম করে, রমজানে সব কিছুর দাম নিয়ন্ত্রণে ছিলো, স্বাভাবিক ছিলো। অন্তত এ সুনামটুকু আমরা অর্জন করতে চাই।’ রমজান উপলক্ষে নিত্য-প্রয়োজনীয় পণ্য অতিরিক্ত আমদানি করা হয়েছে উল্লেখ করে তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘এ বছর কেউ কোনও পণ্য মজুদ করবে না। কারণ, চাহিদার তুলনায় সব পণ্যের সরবরাহ বেশি। তাই কেউ মজুত করলে রোজার পর নদীতে ফেলে দিতে হবে।’

বাণিজ্যমন্ত্রী সরকার এবং ব্যবসায়ীদের একই পরিবারের সদস্য হিসেবে অভিহিত করে বলেন, ‘আমরা একে অপরের ভাই। আপনাদের প্রতি অনুরোধ, রোজার মাসে যেন কোনও দুর্নাম না হয়,বরং সুনাম অর্জন করতে পারি,সে বিষয়ে সরকারকে সহযোগিতা করুন। আমদানিকারক, পাইকারি ব্যবসায়ী ও খুচরা ব্যবসায়ী সবাই মুনাফা করবেন। তবে তা যেন সহনীয় মাত্রায় থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..